মেনু নির্বাচন করুন

মেঘনা নদীর তীর

রুপালী ইলিশের চক চকে খনি এই আমাদের মেঘনানদী, হাজারো জেলেদের কর্ম কেত্র মেঘনা নদী। মেঘনা নদীতে রুপালী ইলিশ পাওয়া যায়। ঢাকা চট্টগ্রাম নৌযান জাহাজ চর ফলকন ইউনিয়নে রমেঘনা নদীর তীরবর্তী হয়ে চলাচল করে। ভোলা বরিশাল জেলার লোকজন লক্ষ্মীপুর কমলনগর চরফলকন হয়ে মেঘনা নদীতে ফেরীষ্ট্রীমার যোগে চলাচল করে থাকে। চর ফলকন এলাকায় মেঘনা নদীতে জেলেদের মাছ ধরার দৃশ্য খুবই মনোরমসুন্দর লাগে। নদীর ঢেউয়ের মাতানো খেলা দেথে নিজের মন মুগ্ধ হয়ে যায়। নিজেকে অনেক আনন্দ দেওয়া যায়।

স্থানীয় ভাবে জিও ব্যাগে মেঘনা নদীর হাত থেকে চর ফলকন কমলনগ রউপজেলাকে রক্ষা করার জন্য স্থানীয় ভাবে জিও ব্যাগে বাধ কার্যক্রম চলছে। নদীর এই বাধ দেখার জন্য শত মানুষ প্রতি দিন মেঘনা রতীরবর্তীতে ভীর জমায়।

 

                                        

            

কিভাবে যাওয়া যায়:

ঢাকা, চট্টগ্রাম বিভিন্ন বিভাগ ও জেলা থেকে বাস যোগে লক্ষ্মীপুর জেলার ঝুমুর বাসস্ট্যান্ডে নামতে হবে। তারপর কমলনগর উপজেলায় আসার জন্য মিনিবাস বা সিএনজি যোগে কমলনগর উপজেলার হাজির হাট বাজারে নামতে হবে এবং রিক্সা বা সিএনজি যোগে চর ফলকন ইউনিয়নের মেঘনানদীর তীরে যাওয়া যাবে। রুপালী ইলিশের চক চকে খনি এই আমাদের মেঘনানদী, হাজারো জেলেদের কর্ম কেত্র মেঘনা নদী। মেঘনা নদীতে রুপালী ইলিশ পাওয়া যায়। ঢাকা চট্টগ্রাম নৌযান জাহাজ চর ফলকন ইউনিয়নে রমেঘনা নদীর তীরবর্তী হয়ে চলাচল করে। ভোলা ও বরিশাল জেলার লোকজন লক্ষ্মীপুর ও কমলনগর চরফলকন হয়ে মেঘনা নদীতে ফেরী ও ষ্ট্রীমার যোগে চলাচল করে থাকে। চর ফলকন এলাকায় মেঘনা নদীতে জেলেদের মাছ ধরার দৃশ্য খুবই মনোরম ও সুন্দর লাগে। নদীর ঢেউয়ের মাতানো খেলা দেথে নিজের মন মুগ্ধ হয়ে যায়। নিজেকে অনেক আনন্দ দেওয়া যায়।


Share with :

Facebook Twitter