মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

দর্শনীয় স্থান

ক্রমিক নাম কিভাবে যাওয়া যায় অবস্থান
মতিরহাট মাছঘাট কমলনগর উপজেলা থেকে বাস যোগে তোরাবগঞ্জ বাজার নেমে সেখান থেকে সিএনজি যোগে মতির হাট মাছ বাজার যাওয়া যায়। কমলনগর উপজেলার মতির হাট বাজারের মাছ ঘাট। এখানে প্রতিদিন জেলেরা নদী থেকে নানা প্রজাতির মাছ ধরে এই ঘাটে এনে উন্মুক্ত ভাবে বিক্রি করে। প্রতিদিন হাজারো জেলের মিলন মেলা হয় এই মতির হাট মাছ ঘাটে বিরল প্রজাতীর মাছ পাওয়া এই ঘাটে। লক্ষ্মীপুর জেলার বিভিন্ন প্রান্ত হতে মানুষ এখানে মাছ ক্রয় করতে আসে। মতির হাট মাছ ঘাটের সুনাম শুধু লক্ষ্মীপুর জেলায় নায় বৃহত্তম নোয়াখালীতে রয়েছে। যাদের বেশি মাছের প্রয়োজন হয় তারাই চলে আসে স্বনাম ধণ্য এই মতির হাট মাছ ঘাটে। যে যার মতো করে চাহিদা অনুযায়ী নিয়ে যায় বিভিন্ন প্রকারের মাছ ক্রয় করে নিয়ে যায়।
ভাষা সৈনিক কমরেড মোহাম্মদ তোয়াহার স্মৃতিসৌধ ঢাকা থেকে সানফ্লা্ওয়ারে করে এসে সরাসরি হাজির হাট নামতে হবে। নামার পরে হাজির হাট বাজারের উত্তর পাশে তোয়াহা সাহেবের নামে একটি স্কুল আছে যার নাম তোয়াহা স্মৃতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। তার গেইট দিয়ে ঢুকলে হাতের ডান পাশে এটি অবস্থিত।উপজেলা কমপ্লেক্স থেকে রিক্সা/ মিনি বাস / সিএনজি হাজির হাট বাজারে অবস্থিত তোয়াহা স্মৃতি সৌধে যাওয়া যায়। কমরেড মোহাম্মদ তোয়াহা একজন ভাষা সৈনিক ছিলেন। তৎকালীন সময়ে তিনি রামগতি ও কমলনগরের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছিলেন। তিনি রামগতি ওকমলনগরের মানুষের জন্য সব সময়ে নিববেদিত প্রাণ ছিলেন। তখনকার রামগতির দকGষি্ন অঞ্চল হলো বর্তমান কমলনগর তার নামে নাম করন করা হয় রামগতি টু লক্ষ্মীপুর আঞ্চলিক মহাসড়ক।
মেঘনা নদীর তীর ঢাকা, চট্টগ্রাম বিভিন্ন বিভাগ ও জেলা থেকে বাস যোগে লক্ষ্মীপুর জেলার ঝুমুর বাসস্ট্যান্ডে নামতে হবে। তারপর কমলনগর উপজেলায় আসার জন্য মিনিবাস বা সিএনজি যোগে কমলনগর উপজেলার হাজির হাট বাজারে নামতে হবে এবং রিক্সা বা সিএনজি যোগে চর ফলকন ইউনিয়নের মেঘনানদীর তীরে যাওয়া যাবে। রুপালী ইলিশের চক চকে খনি এই আমাদের মেঘনানদী, হাজারো জেলেদের কর্ম কেত্র মেঘনা নদী। মেঘনা নদীতে রুপালী ইলিশ পাওয়া যায়। ঢাকা চট্টগ্রাম নৌযান জাহাজ চর ফলকন ইউনিয়নে রমেঘনা নদীর তীরবর্তী হয়ে চলাচল করে। ভোলা ও বরিশাল জেলার লোকজন লক্ষ্মীপুর ও কমলনগর চরফলকন হয়ে মেঘনা নদীতে ফেরী ও ষ্ট্রীমার যোগে চলাচল করে থাকে। চর ফলকন এলাকায় মেঘনা নদীতে জেলেদের মাছ ধরার দৃশ্য খুবই মনোরম ও সুন্দর লাগে। নদীর ঢেউয়ের মাতানো খেলা দেথে নিজের মন মুগ্ধ হয়ে যায়। নিজেকে অনেক আনন্দ দেওয়া যায়।
খ্যাতিমান সাংবাদিক ও লেখক সানাউল্যাহ নূরীর জন্মস্থান নূরীপুর কমলনগর উপজেলা সদর হাজির হাট থেকে দক্ষিণ দিকে মেঘনা সিনেমা হল হয়ে হাজির হাট-খায়ের হাট সড়কের পাশে রিক্সা ও সিএনজি যোগে নূরীপুর যাওয়া যায়।দারুচিনি দ্বীপের দেশেসহ ভ্রমনকাহিনী,ছড়া,গল্প,উপন্যাস,কবিতা,সংবাদসহ অসংখ্য কালজয়ী লেখার জন্য খ্যাতিমান লেখক ও সাংবাদিক ছানা উল্যাহ নূরীর জন্ম। চর ফলকনের নূরীপুর গ্রামে। লেখকের জন্মস্থানে পিতার নামে ছেলামত উল্যা ফাউন্ডেশন ও মাতার নামে বেগম মনসুরা দারুল ফালাহ মাদ্রাসাসহ প্রাকৃতিক মনোরম পরিবেশ চর ফলকনের দর্শনীয় স্থান।
ভাষা সৈনিক কমরেড মোহাম্মদ তোয়াহার স্মৃতিসৌধ। ঢাকা থেকে সানফ্লা্ওয়ারে করে এসে সরাসরি হাজির হাট নামতে হবে। নামার পরে হাজির হাট বাজারের উত্তর পাশে তোয়াহা সাহেবের নামে একটি স্কুল আছে যার নাম তোয়াহা স্মৃতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। তার গেইট দিয়ে ঢুকলে হাতের ডান পাশে এটি অবস্থিত।উপজেলা কমপ্লেক্স থেকে রিক্সা/ মিনি বাস / সিএনজি হাজির হাট বাজারে অবস্থিত তোয়াহা স্মৃতি সৌধে যাওয়া যায়।কমরেড মোহাম্মদ তোয়াহা একজন ভাষা সৈনিক ছিলেন। তৎকালীন সময়ে তিনি রামগতি ও কমলনগরের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছিলেন। তিনি রামগতি ওকমলনগরের মানুষের জন্য সব সময়ে নিববেদিত প্রাণ ছিলেন। তখনকার রামগতির দক্ষিনে অঞ্চল হলো বর্তমান কমলনগর তার নামে নাম করন করা হয় রামগতি টু লক্ষ্মীপুর আঞ্চলিক মহাসড়ক।
কালকিনি মেঘনা নদীর নদী পাড় রুপালী ইলিশের চকচকে খনি এই আমাদের মেঘনা নদী, হাজারো জেলেদের কর্ম কেত্র মেঘনা নদী। মেঘনা নদীতে রুপালী ইলিশ পাওয়া যায়। ঢাকা চট্টগ্রাম নৌযান জাহাজ চর কালকিনি ইউনিয়নের মেঘনা নদীর তীরবর্তী হয়ে চলাচল করে। ভোলা ও বরিশাল জেলার লোকজন লক্ষ্মীপুর ও কমলনগর চর কালকিনি হয়ে মেঘনা নদীতে ফেরী ও ষ্ট্রীমার যোগে চলাচল করে থাকে। চর কালকিনি এলাকায় মেঘনা নদীতে জেলেদের মাছ ধরার দৃশ্য খুবই মনোরম ও সুন্দর লাগে। নদীর ঢেউয়ের মাতানো খেলা দেথে নিজের মন মুগ্ধ হয়ে যায়। নিজেকে অনেক আনন্দ দেওয়া যায়।
মাতাব্বর নগর নদী ভ্রমন ঢাকা, চট্টগ্রাম বিভিন্ন বিভাগ ও জেলা থেকে বাস যোগে লক্ষ্মীপুর জেলার ঝুমুর বাসস্ট্যান্ডে নামতে হবে। তারপর কমলনগর উপজেলায় আসার জন্য মিনিবাস বা সিএনজি যোগে কমলনগর উপজেলার হাজির হাট বাজারে নামতে হবে এবং রিক্সা বা সিএনজি যোগে সাহেবেরহাট ইউনিয়নের মেঘনানদীর তীরে যাওয়া যাবে।